আজ | মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল ২০২০
Search

হঠ্যাৎ আলোচনায় খালেদার দণ্ড মওকুফ চাওয়া আইনজীবী

৯:২১ অপরাহ্ন, ১০ মার্চ, ২০২০

chahida-news-1583853707.jpg
ফাইল ছবি

বেগম জিয়ার দণ্ড মওকুফ চেয়ে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করে আলোচনায় এক আইনজীবী। আবেদনটি দল বা পরিবারে কারো পরামর্শে করা হয়নি বলেও জানান তিনি। বিএনপির মহাসচিব বলছেন, নিজেকে গণমাধ্যমের সামনে নিয়ে আসতেই এমন কাণ্ড তার। বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন অ্যাটর্নি জেনারেলও। বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্য নন এমনকি দলেরও কোনো আইনজীবী না হয়েও দুর্নীতির মামলায় বেগম জিয়ার দণ্ড মওকুফ চেয়ে আবেদন করে আলোচনায় সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ। নিজে কোন দল করেননা বলে দাবি করলেও গত জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টির হয়ে নির্বাচন করেছেন তিনি।

ইউনুছ আলী আকন্দ বলেন, আমি আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপি কোনটাই করি না। কোন দল করি না।

পরিবার বা দলের কোন পরামর্শ ছাড়াই মঙ্গলবার বিএনপি নেত্রীর মুক্তি চেয়ে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই আইনজীবীর আবেদন করা নিয়ে ব্যাপক উৎসাহের সৃষ্টি হয়।

ইউনুছ আলী আকন্দ বলেন, আমি কারো ইন্সট্রাকশনে আবেদন করি নাই। বিষয়টি স্পর্শকাতর এবং জনগুরুত্বপূর্ণ। তাই মানবিক কারণে আমি এই আবেদনটি করেছি।

তার এমন আবেদনে নিয়ে আলোচনা হয় সুপ্রিম কোর্টে। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, গণমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই এ আবেদন করেছেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, এটা সম্পূর্ণ তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। তার সঙ্গে আমাদের কোনো যোগাযোগ হয়নি। অন্য কোনো পরিকল্পনা কিনা তা আমরা বলতে পারবো না। এই ভদ্রলোক সবসময় এই ধরণের কাজ করেন নিজে লাইমলাইটে আসার জন্য আরকি।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা। তিনি বলেন, দণ্ডিত ব্যক্তি বা আসামির আবেদন ছাড়া কোন আবেদনই গ্রহণযোগ্য নয়।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, কেউ যদি রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা ভিক্ষা করেন তাহলে তাকে প্রক্রিয়া অনুযায়ী দরখাস্ত করতে হবে। রাষ্ট্রপতি সংবিধানের আলোকে সেটার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এর আগে গত শনিবার সাময়িক মুক্তি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করে বেগম জিয়ার পরিবার। আবেদনটি এখন আইন মন্ত্রণালয়ে রয়েছে আইনি মতামতের জন্য।

  

আপনার মন্তব্য লিখুন